বিদ্যুৎ রপ্তানি করতে চায় বাংলাদেশ

1609484766080.jpg
Source

বিদ্যুৎ উৎপাদনে বাংলাদেশ জে এতোটা শক্তিশালী অবস্থানে পওছে গেছে এটা হয়তো গতোদিন সচিবালয়ে মিটিং এর নিউজ কাভারেজ না দেখলে কল্পনাই করতে পারতাম না৷ অথচ, একটা সময় ছিলো আমরা কল্পনাই করতে পারতাম না জে এমন একটা দিন আমরা পার করতে পারবো, জেদিন কি না, কারেন্ট জাবে না। অথবা লোডশেডিং হবে না৷ লোডশেডিং আমাদের নিত্যদিনের অভ্যাসে পরিনত হয়েছিলো।

২০১০ সালের দিকে বাংলাদেশ সরবপ্রথম, বাংলাদেশের বিদ্যুৎ ঘাটতি মেটানোর জন্য, বিভিন্ন প্রজেক্ট হাতে নেয়। এরই ধারাবাহিকতায়, বাংলাদেশের সরকার কুইক রেন্টাল প্রজেক্ট নামে একটা প্রজেক্ট রান করে৷

এই ১০ বছরে বহু উত্থান পতনের মধ্যে দিয়ে আমাদের দেশকে জেতে হয়েছে৷ অনেক বড় বড় প্রজেক্ট কিন্তু বাংলাদেশে চালু হতে চলেছে৷

1609484849026.jpg
Source

বাংলাদেশের জ্বালানি ও বিদ্যুত বিষয়ক সচিব, গতোকাল এক বক্তব্যে বলেছেন, বাংলাদেশ এখন বিদ্যুৎ প্রয়জনের চেয়ে প্রায় ৬ হাজার মেগাওয়াট বেশি উতপাদন হয় এবং এই অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বাংলাদেশের সরকার অন্তত শীত মৌসুমে রপ্তানি করতে চায়। এতেই দেশের সম্পদের সুষ্ঠু ব্যাবহার হবে৷

এর সাথে বাংলাদেশ সরকারের বেসরকারি বানিজ্য বিষয়ক উপদেষ্টা জুক্ত করেন জে, কুইক রেন্টাল প্রজেক্ট হাতে নেয়ার সময় অনেকেই এর বিরোধিতা করেছিলো। অনেক বড় বড় গবেষক বলেছিলেন এতে দেশের কনো উপকার আসবে না৷ শুফহু শুধু কোটি কোটি টাকা খরচ করা হচ্ছে। অথচ, এই কুই রেন্টাল প্রজেক্ট এর কারনেই, দেশের বিদ্যুৎ ব্যাবস্থার চরম উন্নয়ন হয়েছে। বাংলাদেশে এখন বিদ্যুৎ এর কুনু ঘাটতি নেই বরং বাংলাদেশ এখন বিদ্যুৎ রপ্তানি করার কথা ভাবছে৷ হয়তো, সামনের বছর থেকেই শুধুমাত্র শীত মৌসুমে বাংলাদেশ ৫-৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ রপ্তানি করতে সক্ষম হবে৷

H2
H3
H4
3 columns
2 columns
1 column
1 Comment